স্মার্টফোন ভালো রাখার উপায়

0
894

আজকের দিনে স্মার্টফোন ব্যাবহার করেন না এরকম মানুষ খুজে পাওয়া অনেকটা অসম্ভব বলা চলে। স্মার্টফোন এখন আমাদের দৈনন্দিন জীবনের একটি অংশ হয়ে গেছে। কি না করা যায় এই স্মার্টফোন দিয়ে? ইন্টারনেট কানেকশন সহ একটি স্মার্টফোন আপনার কাছে থাকার অর্থ হচ্ছে আপনি পুরো দুনিয়া আপনার হাতে নিয়ে ঘুরছেন। কিন্তু এই স্মার্টফোন যত্ন কিংবা এর রক্ষণাবেক্ষণ আমরা অনেকই ঠিকভাবে করতে পারি না। যার কারণে প্রয়োজনীয় এই ডিভাইসটি অনেক সমই খারাপ/নষ্ট হয়ে যায়। আজকে আমরা আপনাদের সাথে আলোচনা করবো এই স্মার্টফোন ভালো রাখার কিছু প্রয়োজনীয় টিপস সম্পর্কে।

স্মার্টফোন ভালো রাখার উপায়ঃ

  • মাত্রাতিরিক্ত ব্যাবহার থেকে বিরত থাকাঃ আমরা স্মার্টফোনকে অনেক সময় একটু বেশীই ব্যাবহার করার চেষ্টা করি। নতুন অবস্থায় এর তেমন ক্ষতি হয় না কিন্তু যত দিন যেতে থাকবে আপনার ফোনের পারফরমেন্স ততো বেশী খারাপ হতে থাকবে। আমরা অনেকেই মনে করে এই ডিভাইস তো সবকিছু করতে পারে তাহলে আমি কম কেন ব্যাবহার করবো? আমরাও আপনার সাথে একমত। স্মার্টফোনের সেই ক্ষমতা আছে কিন্তু সমস্যা হচ্ছে, আমরা প্রায়ই ভুলে যাই “এটি একটি ফোন মাত্র- কোনও কম্পিউটার নয়। প্রতিটি জিনিশ এর এই কিছু নির্দিষ্টই কেপাসিটি আছে। এর বাইরে চলে গেলে সে আর তার পারফরমেন্স ধরে রাখতে পারে না। সুতরাং, আমাদের স্মার্টফোন ব্যাবহারে কিছুটা মিতব্যয়ী হতে হবে।
  • মাত্রাতিরিক্ত এপ্লিকেশনের ব্যাবহার থেকে বিরত থাকাঃ গুগল প্লে-স্টোরে প্রায় Application আছে ১০ লাখের উপরে। সব এপ্লিকেশনতো আর কাজের না। আমরা নতুন স্মার্টফোন কেনার পরই নতুন Apps ডাউনলোড করায় মন দেই। কনেক সময় জানিই না যে এই এপ্লিকেশন আমার কোনও কাজে আসবে কিনা? এই অভ্যাস আমাদের ছাড়তে হবে। আপনি যত বেশী পরিমাণ এপ্লিকেশন আপনার ফোনে রাখবেন আপনার ফোন ততো বেশী ধীরগতিতে কাজ করতে থাকবে। প্রায়ই দেখা যায়, আমরা একটি Browser এর বদলে অনেকগুলো ইন্সটল করে রেখে দেই। অথচ, আপনি কি কখনো চিন্তা করেছেন- আপনি এই সবগুলো Browser প্রতিনিয়ত ব্যাবহার করেন কিনা? উত্তর সহজ! আমরা কেউই করি না। যেই এপ্লিকেশন ব্যাবহার না করলে আপনার চলবে না সেই এপ্লিকেশন ছাড়া অন্য কোনও এপ্লিকেশন ব্যাবহার করার কোনও প্রয়োজন নেই। এতে আপনার ফোনটাই ভালো থাকবে।
  • মাত্রাতিরিক্ত চার্জ দেয়া থেকে বিরত থাকাঃ স্মার্টফোনের সবচেয়ে খারাপ দিক হচ্ছে এর চার্জ ধারন করার ক্ষমতা। স্মার্টফোন আমাদের সবকিছুই দিতে পারে শুধুমাত্র বেশীক্ষণ ব্যাটারি ব্যাকআপ ছাড়া। চিন্তায় পড়ে গেলেন? একটু ৭/৮ বছর আগের কথা চিন্তা করে দেখেন আমরা যখন Nokia ফোন ব্যাবহার করতাম তখন একবার ফুল চার্জেই অনায়াশে ২ দিন চলে যেতো কিন্তু এখন আর সেটা সম্ভব নয় কারন হচ্ছে আগে তো ভাই ফোনে এত কিছু ব্যাবহার করার সুযোগ ছিল না। স্মার্টফোন ব্যাবহারকারীরা অনেক বেশী চার্জ দেয়ার জন্য সবসময় তৈরি থাকেন কিন্তু এটা আপনার ফোনের জন্য খুব খারাপ দিক। এখন চার্জ শেষ হয়ে গেলে তো দিতেই হবে কিন্তু ততোক্ষণই দিবেন যতক্ষণ পর্যন্ত ফুল চার্জ না হয়। ফুল চার্জ হয়ে গেলে কখনোই আপনার ফোন চার্জে যুক্ত রাখবেন না। এতে আপনার ফোনও ভালো থাকবে এবং অন্নদিকে দেশের কিছুটা বিদ্যুৎও বাঁচবে।
  • অতিরিক্ত গেইম কিংবা ভিডিও দেখা থেকে বিরত থাকাঃ এক জরিপে দেখা গেছে ১৫-২৮ বছরের মানুষ ফোনে সবচেয়ে বেশী পরিমাণ গেইম এবং ভিডিও দেখে থাকেন (Source-The Verge)। এটি আপনার সাস্থ এবং আপনার ফোনের সাস্থের জন্য খারাপ। অতিরিক্ত গেইম এবং ভিডিও আপনার ফোনের Battery এবং Processor এর উপরে অনেক বেশী পরিমাণ চাপ ফেলে যা আপনার ফোনকে ভবিষ্যতে ব্যাবহারের অনুপযোগী করে তুলতে পারে। গেইম খেলবেন এবং ভিডিও দেখবেন কিন্তু অবশ্যই সেটা একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত।
  • ফোনের সফটওয়্যার আপডেট রাখাঃ মাঝে মাঝে দেখবেন আপনার ফোনের সফটওয়্যার সংক্রিয়ভাবে আপডেট নিচ্ছে কিংবা অনেকই এই অপশনটি বন্ধ করে রাখেন। কিন্তু স্মার্টফোন ব্যাবহার করলে সবসময় আপনার ফোনের সফটওয়্যার আপডেট দিয়ে রাখবেন। যেকোনো নতুন আপডেট ওই এপ্লিকেশনের পারফরমেন্স উন্নীত করে যা আপনার ফোনের স্বাভাবিক পারফরমেন্সকেও অনেকাংশে বাড়ায়।
    ফোনের সফটওয়্যার আপডেট দেয়ার জন্য আপনার ফোনের Settings এ যাবেন, সেখান থেকে About Device এ ক্লিক করবেন। ওইখানে দেখবেন Check New Update নামে একটি অপশন আছে। ওইখানে ক্লিক করলে সয়ংক্রিয়ভাবে আপনার ফোন নতুন কোনও আপডেট এসেছে কিনা সেটা চেক করবে। যদি নতুন আপডেট আসে তাহলে ডাউনলোড করে ইন্সটল করে নিন।
  • বিভিন্ন ব্র্যান্ডের এক্সসরিজ ব্যাবহার না করাঃ আমরা প্রায়ই এক ব্র্যান্ডের ফোনকে আর ব্র্যান্ডের চার্জার দিয়ে চার্জ করি। আমরা মনে করি চার্জ তো হচ্ছেই তাহলে সমস্যা তো কিছুই নাই! ধারনাটি সম্পূর্ণ ভুল। এক এক ব্র্যান্ডের ফোন এর এক এক মডেলের চার্জার এর আউটপুট এক এক রকমের হয়ে থাকে। সুতরাং কখনোই বিপদে না পড়লে অন্য মডেলের কিংবা ব্র্যান্ডের চার্জার দিয়ে ফোন চার্জ করবেন না। সাময়িকভাবে আপনার ফোন চার্জ ঠিকই হবে কিন্তু ভবিষ্যতে এর কুফল হিসাবে, ব্যাটারি নষ্ট হয়ে যাওয়া, ডিসপ্লে কাজ না করা, চার্জ না থাকা, গরম হয়ে যাওয়া এই ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে। আপনার যদি এই অভ্যাস থেকে থাকে তাহলে নিজের শখের স্মার্টফোনের কথা চিন্তা করে আজকেই এই অভ্যাস পরিহার করুন।
    বিঃ দ্রঃ যাদের ফোন ফাস্ট চারজিং সাপোর্ট করে না তারা কখনই অন্যের ফাস্ট চার্জার দিয়ে ফোন চার্জ করবেন না।
  • ফোন বারবার রিসেট করা থেকে বিরত থাকুনঃ আমরা অনেকই যখন স্মার্টফোন একটু ধীরগতির হয়ে যায়, কাজ করে একটু সময় নিয়ে কিংবা কোনও এপ্লিকেশন ঠিক মতন কাজ করে না তখন ফোনকে রিসেট/Reset করে ফেলি। এতে করে ফোন কাজ করে ঠিকই কিন্তু এই কাজ বার বার করলে ফোনের সমস্যা হয়। যেমন, সফটওয়্যার জনিত, অতিরিক্ত গরম হয়ে যাওয়া, ডিসপ্লে সাদা হয়ে যাওয়া ইত্যাদি। যদি আপনার কখনো ফোন রিসেট করার প্রয়োজন পড়ে তাহলে আগে বুঝে নিন কি কারণে আপনি রিসেট করতে চাচ্ছেন। বারবার রিসেট দেয়া থেকে বিরত থাকুন আপনার ফোন ভালো থাকবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

18 − seventeen =